রাখাইনের সংঘর্ষে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন দীর্ঘায়িত হবে

আজকের পত্রিকা প্রকাশিত: ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৭:০৫

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম এলাকার তুমব্রু বাজারের দক্ষিণ পাশে আছে মিয়ানমারের একটি সীমান্তচৌকি। তমব্রু রাইট ক্যাম্প নামে পরিচিত এই ক্যাম্প এলাকা থেকেই গতকাল বৃহস্পতিবারও সবচেয়ে বেশি গোলাগুলির শব্দ শোনা যায়। মিয়ানমারের অভ্যন্তরে চলমান সশস্ত্র সংঘর্ষ বাংলাদেশ থেকে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনকে আরও দীর্ঘায়িত করবে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। কেউ কেউ বলছেন, রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন ঠেকাতেই মিয়ানমার পরিকল্পিতভাবে আরাকান আর্মির বিরুদ্ধে অভিযান জোরদার করেছে।


জানতে চাইলে নিরাপত্তা বিশ্নেষক মেজর (অব) এমদাদুল ইসলাম বলেন, ‘এই সংঘাত, সংঘর্ষ রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনকে নতুন একটা সংকটের মধ্যে ফেলে দিয়েছে। মিয়ানমার সরকার অজুহাত দেবে, এখানে সংঘাত হচ্ছে। রোহিঙ্গারা বলবে, এই সংঘাতের মধ্যে আমরা কীভাবে যাব? তাই রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনটা নিঃসন্দেহে দীর্ঘায়িত হবে। যত দিন রাখাইনে স্থিতিশীলতা ফিরে না আসছে, তত দিন সে দেশে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন সম্ভব হবে না।’


তবে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মো. মিজানুর রহমান আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের বিষয়ে আমরা কাজ করছি। মিয়ানমার সরকারের সঙ্গে আমরা যোগাযোগ চালিয়ে যাচ্ছি। রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে তারাও আগ্রহী। আমরা আশা করছি, অক্টোবরের মধ্যে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু করতে পারব।’ 
রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে ২০১৮ সালে মাঠপর্যায়ের চুক্তি সই করেছিল বাংলাদেশ ও মিয়ানমার। ওই চুক্তিতে বলা হয়েছিল, প্রত্যাবাসন শুরু করে ‘সম্ভব হলে তা দুই বছরের মধ্যে শেষ করা হবে। কিন্তু রাখাইনে ফেরার মতো পরিবেশ তৈরি না হওয়ায় দুই দফা তারিখ চূড়ান্ত করেও রোহিঙ্গা 

সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন

সংবাদ সূত্র

News

The Largest News Aggregator
in Bengali Language

Email: [email protected]

Follow us