কুইক লিঙ্ক : মুজিব বর্ষ | করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব | প্রিয় স্টোর

এ বারও জিতব, সবাই মিলে

আনন্দবাজার (ভারত) শ্যামল চক্রবর্তী প্রকাশিত: ১১ মে ২০২১, ০৬:৩০

গত বছর করোনাভাইরাস রাজ্যে ঢুকে পড়ার পরই প্রবল সক্রিয় হয়েছিল রাজ্যের স্বাস্থ্য দফতর। তখন সরকার কঠিন যুদ্ধের মধ্যে স্বাস্থ্যকর্মীদের সমন্বয়ের জরুরি কাজটা সামলাত। এ বার রাজ্যে সরকার কোথায়, ফেব্রুয়ারি-মার্চে ভোটের ধামাকায় বোঝাই যায়নি। অন্য রাজ্যগুলোতে যখন করোনা-বহুরূপী ঝাঁপিয়ে পড়ছে প্রবল বিক্রমে, প্রশাসন তখনও ভোটমগ্ন, সংবাদমাধ্যমও প্রায় তাই। যখন প্রশাসন সক্রিয় হল, তত দিনে দেরি হয়ে গিয়েছে অনেক। ট্রেনে বিমানে মহারাষ্ট্র, গুজরাত, দিল্লি, কেরল থেকে রাজ্যে নাগাড়ে ঢুকেছেন অসংখ্য মানুষ। যাত্রা শুরুর আগে বা শেষে নজরদারি বা পরীক্ষা প্রায় ছিল না। সময়ে সতর্ক থাকলে, কোভিডের দ্বিতীয় ঢেউ এ ভাবে লন্ডভন্ড করে দিতে পারত না বাংলাকে।


রাজধানী জ্বলছে, রাজা গদির খোয়াবে বিভোর। নানা স্ট্রেনের ভাইরাসের ভয়ঙ্কর দৌরাত্ম্যে মে মাসে এ রাজ্যেও গণচিতা জ্বলতে পারে। রাজ্য প্রশাসন কোভিড হাসপাতাল খুলছে, বহু হাসপাতালে খুলছে কোভিড ওয়ার্ড, সেফ হোমগুলোও চালু হচ্ছে। হাসপাতালে বেড বাড়ালেই সুচিকিৎসার ব্যবস্থা হয় না। দরকার ডাক্তার, স্বাস্থ্যকর্মী, ওষুধ, অক্সিজেন, নানা চিকিৎসার সরঞ্জাম। সাফাইকর্মী থেকে জীবাণুনাশের ব্যাপক আয়োজন জরুরি।

সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন

প্রতিদিন ৩৫০০+ সংবাদ পড়ুন প্রিয়-তে

আরও