কুইক লিঙ্ক : মুজিব বর্ষ | করোনা ম্যাপ | করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব

গণপরিবহন স্বাভাবিক, যাত্রী কম

বাংলা ট্রিবিউন ঢাকা মেট্রোপলিটন প্রকাশিত: ০৮ এপ্রিল ২০২১, ১৪:৫১

সরকারঘোষিত বিধি-নিষিধের আজ চতুর্থ দিন বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) রাজধানী ঢাকায় স্বাভাবিক রয়েছে গণপরিবহন চলাচল। তবে সকালের অফিস সময় শেষ হওয়ার পর অধিকাংশ পরিবহনে তেমন একটা যাত্রী দেখা যাচ্ছে না। পরিবহন চালকরা বলছেন, মানুষ একান্ত বাধ্য না হলে গণপরিবহনে উঠছে না। করোনার কারণে তারা গণপরিবহন এড়িয়ে চলার চেষ্টা করছে। এ কারণে যাত্রী পাওয়া যাচ্ছে না।


সকালে অফিস সময়ের আগে নগরীর বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিটি পরিবহনেই পর্যাপ্ত সংখ্যক যাত্রী রয়েছেন। তখন কোনও কোনও পরিবহনকে প্রতিটি আসনে যাত্রী পরিবহন করতেও দেখা গেছে। কিন্তু সকাল ১০টার পর এই চিত্র উল্টে যায়। অর্ধেক আসান ফাঁকা রেখে যাত্রী পরিবহনের পরও এর অর্ধেক ফাঁকা থাকতে দেখা গেছে।


গণপরিবহন চালু হওয়ায় মেলাও প্রাণবন্ত


গণপরিবহন চালুর প্রভাব পড়েছে বইমেলায়। বেড়েছে বিক্রি, পাঠকের আনাগোনা। বেঞ্চে, খোলা মাঠে বসে মেলায় আসা মানুষের আড্ডা বেশ প্রাণবন্ত করে তুলেছিল বইমেলাকে। দুই দিনের ফাঁকা মেলা কালকে যেন কিছুটা প্রাণ ফিরে পায়।


এদিকে গত দুটি দিন মনমরা হয়ে বসা থাকা অনেক প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান বিক্রি বাড়ায় খুশি। অবসরের বিক্রয় ব্যবস্থাপক মাসুদ রানা জানালেন, বিক্রি দুই দিন ধরে বেড়েছে। অনেকেই লিস্ট ধরে এসে বই কিনছেন। প্রতি বছর মেলা শেষের দিকে গড়ালে এভাবে বিক্রি বাড়ে। এবার সেটা কম হলেও শুরু হয়েছে। এটাই আশা জাগাচ্ছে। সামনের সপ্তাহের দুটি ছুটির দিনে আশা করছি মেলা জমে উঠবে। ঐতিহ্য প্রকাশনীর বিক্রয় ব্যবস্থাপক আমজাদ হোসেন কাজল বললেন, ‘বিক্রি খুব খারাপ না। গণপরিবহন চালু হওয়ার প্রভাব পড়েছে মেলায়। ফলে আমাদের বিক্রিও বাড়ছে।’


চট্টগ্রামে ঢিলেঢালা লকডাউন গণপরিবহনে স্বস্তি


চট্টগ্রামে ঢিলেঢালাভাবে চলছে লকডাউন তথা কঠোর বিধি-নিষেধ। সরকারি অফিস-আদালত, মার্কেট, বিপণি কেন্দ্র বন্ধ থাকলেও হাট-বাজার, অলি-গলিতে ভিড়, জটলা লেগেই আছে। উপেক্ষিত হচ্ছে স্বাস্থ্যবিধি। শারীরিক দূরত্ব মানা হচ্ছে না বিভিন্ন এলাকায়। তবে গণপরিবহন চালু হওয়ায় কর্মজীবীদের মধ্যে স্বস্তি ফিরে এসেছে। সেখানেও উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি।


বুধবার (৭ এপ্রিল) গণপরিবহন চলাচল শুরু হলে নগরীর তিনটি এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় অতিরিক্ত যাত্রী তোলা ও বেশি ভাড়া আদায় এবং জেলার বাইরে যাত্রী পরিবহন করায় পাঁচ বাস চালককে অর্থদন্ড দেয়া হয়। লকডাউনেও গণপরিবহনে মাস্ক ছাড়া ভ্রমণ করছেন যাত্রীরা। এমন ১০ যাত্রীকে জরিমানা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।


গণপরিবহনে সবকিছুই আগের মতো, বেড়েছে শুধু ভাড়া


করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় গণপরিবহনে অর্ধেক যাত্রী বহনের নির্দেশনা দিয়ে ৬০ শতাংশ বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত দেয় সরকার। গত ৩১ মার্চ থেকে দুই সপ্তাহের জন্য কার্যকর হয়েছে এই বর্ধিত ভাড়া। কথা ছিল, গাড়িতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে অর্ধেক আসন খালি রাখতে হবে। একই সঙ্গে যাত্রীদের সবাইকে শতভাগ মাস্ক পরিধান করতে হবে। আবার প্রত্যেক গাড়িতে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার বাধ্যতামূলক।


তবে এত নির্দেশনার মধ্যে শুধু ভাড়া বৃদ্ধি ছাড়া আর কোনো নিয়ম-কানুন মানতে দেখা যাচ্ছে না চট্টগ্রামের গণপরিবহনগুলোকে।

সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন

প্রতিদিন ৩৫০০+ সংবাদ পড়ুন প্রিয়-তে

আরও