মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নির্যাতনের মুখে পালিয়ে আসা ‍রোহিঙ্গা শরনার্থী। সংগৃহীত ছবি।

রোহিঙ্গা সমস্যার স্থায়ী সমাধানে সহায়তার আশ্বাস চীনের

সফররত আওয়ামী লীগের একটি প্রতিনিধি দল দেশটির রাজধানী বেইজিংয়ে ২৫ সেপ্টেম্বর সোমবার অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে চীনের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের ভাইস মিনিস্টার লি জুন এই আশ্বাস প্রদান করেন।

জানিবুল হক হিরা
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১৮:৪৮ আপডেট: ২০ আগস্ট ২০১৮, ০৩:০০
প্রকাশিত: ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১৮:৪৮ আপডেট: ২০ আগস্ট ২০১৮, ০৩:০০


মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নির্যাতনের মুখে পালিয়ে আসা ‍রোহিঙ্গা শরনার্থী। সংগৃহীত ছবি।

(প্রিয়.কম) রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে মিয়ানমারের সঙ্গে বাংলাদেশের সমস্যার স্থায়ী সমাধানে দেশটিকে প্রভাবিত করার আশ্বাস দিয়েছে চীন। রোহিঙ্গা শরণার্থীরা যাতে নিরাপত্তা ও মর্যাদার সাথে মিয়ানমার ফিরে যেতে পারে এজন্য চীন আন্তরিকভাবে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে ইতিবাচক ভূমিকা রাখবে বলেও আশ্বাস দিয়েছে।

সফররত আওয়ামী লীগের একটি প্রতিনিধি দল দেশটির রাজধানী বেইজিংয়ে ২৫ সেপ্টেম্বর সোমবার অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে চীনের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের ভাইস মিনিস্টার লি জুন এই আশ্বাস প্রদান করেন।

বৈঠকের বিষয়ে আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া বলেন, ‘চীন সরকার মিয়ানমারকে প্রভাবিত করবে যেন তারা বাংলাদেশের উদ্যোগের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এই বিষয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে আলোচনায় বসে। চীন মনে করে এই অঞ্চলে শান্তির জন্য মিয়ানমার সরকারের রোহিঙ্গা সমস্যায় স্থায়ী সমাধানে পৌঁছানো উচিত।’

বৈঠকে ১৮ সদস্যের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য লে. কর্নেল (অব.) ফারুক খান।

বৈঠকে ফারুক খান ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মণি চলমান রোহিঙ্গা সংকটের বিষয় বিস্তারিত তুলে ধরেন এবং রোহিঙ্গাদের ওপর পরিচালিত বর্বরতা ও নিপীড়ন বন্ধ করার জন্য চীন সরকারের সহযোগিতা কামনা করেন। একই সাথে নেতৃবৃন্দ রোহিঙ্গা সংকটের স্থায়ী সমাধানের জন্য চীন সরকারকে কার্যকরী ভূমিকা পালনের আহ্বান জানান।

বৈঠকে রোহিঙ্গা ইস্যুতে চীনের ভাইস মিনিস্টার লি জুন বলেন, তারা রোহিঙ্গা সংকট সম্পর্কে এবং রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সমস্যা সম্পর্কে সম্পূর্ণ অবগত রয়েছেন। তারা এ সমস্যার শান্তিপূর্ণ উপায়ে স্থায়ী সমাধানের জন্য মিয়ানমার সরকারকে বলেছেন।

বাংলাদেশের উদ্বেগ উৎকণ্ঠার জন্য আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধান করার জন্য মিয়ানমার সরকারকে প্রভাবিত করবে বলেও জানান তিনি।

চীনের ভাইস মিনিস্টার আরও বলেন, বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গা শরণার্থীদের প্রতি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারের মানবিক আচারণের প্রতি আমাদের সন্মান রয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর এমন মানোবিক উদ্যোগের প্রতি সন্মান জানিয়ে আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য ত্রাণ পাঠানো হবে। ত্রাণের মধ্যে থাকবে কম্বল এবং তাবু।

চীন জানিয়েছে, তাদের সহায়তা চলমান থাকবে। একই সঙ্গে তারা জানিয়েছে রোহিঙ্গা শরণার্থীরা যাতে নিরাপত্তা ও মর্যাদার সাথে মিয়ানমার ফিরে যেতে পারে এজন্য তারা আন্তরিকভাবে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে ইতিবাচক ভূমিকা রাখবে।

বৈঠকে আওয়ামী লীগের সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক আফজাল হোসেন, আইন বিষয়ক সম্পাদক শ. ম. রেজাউল করিম, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. শাম্মী আহমদ, উপ-দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, সংসদ সদস্য হাবিবে মিল্লাত, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য নজিবুল্লাহ হিরু, রিয়াজুল কবির কাওসার, দিপংকর তালুকদার ও উপধ্যক্ষ রেমন্ড আরেং।

উল্লেখ্য, গত ১১ আগস্টে রাখাইন রাজ্যে সেনা মোতায়েনের পর ২৫ আগস্ট রোহিঙ্গা ‘জাতিগত নিধন’ শুরু করে। ঘটনায় প্রাণ বাঁচাতে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে লাখ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থী। পুরানো পাঁচ লাখ রোহিঙ্গার সাথে নতুন অভিযানে ইতোমধ্যে যোগ হয়েছে আরও পাঁচ লাখের বেশি রোহিঙ্গা। চলমান রোহিঙ্গা ঢল অব্যাহত থাকলে শরণার্থীর এ সংখ্যা ১০ লাখে পৌঁছাতে পারে বলেও সতর্ক করেছে জাতিসংঘ। এত সংখ্যক শরণার্থীর দায়িত্ব তাদের পক্ষেও নেওয়া সম্ভব নয় বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ। 

প্রিয় সংবাদ/রিমন

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...