কুইক লিঙ্ক : মুজিব বর্ষ | করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব | প্রিয় স্টোর

নাইকি এয়ার ম্যাক্স ২৭০ জুতার তলায় লোগো হিসেবে যা লেখা হয়েছে তা দেখতে আরবি হরফে ‘আল্লাহ’-র মতো। ছবি: সংগৃহীত

জুতায় লেখা ‘আল্লাহ’, তুমুল বিতর্কে নাইকি

সৌরভ মাহমুদ
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ০১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১১:৩৩
আপডেট: ০১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১১:৩৩

(প্রিয়.কম) আরবি হরফে ‘আল্লাহ’ লিখলে যেমন দেখায়, যুক্তরাষ্ট্রের বিখ্যাত ক্রীড়া সরঞ্জাম প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান নাইকির নতুন একটি জুতার লোগোর ডিজাইনে কিছুটা সেরকম দেখা যাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বিভিন্ন দেশের মুসলমানরা একে ইসলামের জন্যে অবমাননাকর বলে মনে করছেন। শুধু তাই নয়, এই ঘটনায় জুতাটি বাজার থেকে প্রত্যাহার করার জন্য বিশ্বের মুসলিমরা দাবি জানিয়েছে।

নাইকির যে জুতার বিরুদ্ধে মুসলিমরা বিক্ষোভ করছেন সেটা সম্প্রতি বাজারে আসা ট্রেইনার মডেলের নাইকি এয়ার ম্যাক্স ২৭০ স্নিকার।

ঘটনার সূত্রপাত নাইকির এক মুসলিম ক্রেতা সাইগা নওরিনের মাধ্যমে। ইন্দোনেশিয়ার সংবাদমাধ্যম দ্য জাকার্তা পোস্টের বরাত দিয়ে জানা যায়, সাইগা নওরিন নামের ওই মুসলিম ক্রেতা নাইকির জুতা কিনতে গিয়ে এটি দেখতে পান। পরবর্তী সময়ে এ ঘটনাকে শাস্তিযোগ্য অপরাধ ও ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগ এনে ওই ডিজাইনের জুতাগুলো বিশ্ববাজার থেকে তুলে নিতে অনলাইনে পিটিশন চালু করেন।

নাইকি এয়ার ম্যাক্স ২৭০ জুতার তলায় থাকা ওই লোগো।

প্রতিষ্ঠানটিকে অভিযুক্ত করে সাইগা নওরিন লিখেছেন, ‘নাইকি এয়ার ম্যাক্স ২৭০ জুতার তলায় লোগো হিসেবে যা লেখা হয়েছে তা দেখতে আরবি হরফে ‘আল্লাহ’-এর মতো…। জুতায় এমন ডিজাইন ব্যবহার করার অনুমতি দিয়ে নাইকি একটি ভয়ঙ্কর ও সাংঘাতিক কাজ করেছে। এই জুতা দিয়ে নিশ্চিতভাবেই পদদলন, লাথি মারা, কাদা বা নোংরা বস্তুর সংস্পর্শে আসবে। এর মাধ্যমে মুসলমানদের প্রতি অশ্রদ্ধা জানানো হয়েছে এবং এটি ইসলামের প্রতি অবমাননাকর।’

তার সঙ্গে একমত সবাইকে ওই পিটিশনে সই করার অনুরোধও করেছেন নওরিন। ইতোমধ্যে ২৫ হাজার স্বাক্ষরের লক্ষ্য নিয়ে চালু হওয়া পিটিশনটিতে ১৯,৫০০ জন স্বাক্ষর করেছেন। বিষয়টি নিয়ে রীতিমত হইচই পড়ে গেছে নেট দুনিয়ায়। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোতে এই ঘটনায় নাইকির তীব্র সমালোচনা করছেন বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের মুসলিমরা।

তবে নাইকি এই অভিযোগকে অস্বীকার করেছে। শুধু তাই নয়, তাদের দাবি এটা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। একই সঙ্গে প্রতিষ্ঠানটি দাবি করছে, স্টাইল করে ‘নাইকি এয়ার ম্যাক্স’ লিখা হয়েছে। এর সঙ্গে ধর্মের কোনো সম্পর্ক নেই। এ নিয়ে নাইকি’র একজন প্রতিনিধি রুশ সংবাদমাধ্যম আরটি’কে বলেন, ‘এর মাধ্যমে “নাইকি এয়ার ম্যাক্স” ব্র্যান্ডটিকে তুলে ধরা হয়েছে। যদি তা দেখতে অন্য কিছুর মতো হয় তাহলে তা অনিচ্ছাকৃত।’

মুসলিম বিশ্বের তুমুল সমালোচনার মুখে নাইকি।

এবারই অবশ্য প্রথম নয়। এর আগে ১৯৯৭ সালে নাইকি’র এয়ার বেকিন নামে স্নিকারের বিরুদ্ধেও একই অভিযোগ উঠেছিল। ওই সময় প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে যুক্তি হিসেবে জানানো হয়, অত্যন্ত নিখুঁতভাবে লোগোর ডিজাইনটা ফুটিয়ে তোলা হয়েছে, যার কারণে লেখাটি এমন দেখাচ্ছে। পরে ওই জুতা বাজার থেকে প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়। নওরিন পিটিশনে ওই ঘটনার কথা তুলে ধরেছেন।

একই সঙ্গে নাইকির যেকোনো পণ্য বর্জনের অনুরোধ জানিয়ে নওরিন লিখেছেন, ‘ওই সময় তাদের তৈরি এয়ার বেকিন মডেলের স্নিকারের লোগোতে “আল্লাহ” শব্দটি ফুটিয়ে তোলা হয়েছিল। তখন তারা যুক্তি দিয়ে বলেছিল, ডিজাইনটা অত্যন্ত সূক্ষ্ম করতেই ঘটনাক্রমে এমনটা হয়ে যেতে পারে। যদি তা-ই হয় তাহলে একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি কেন হলো? আসুন আমরা সবাই নাইকির পণ্য বর্জন করি। তারা ইসলামের শত্রু।’

প্রিয় খেলা/রুহুল